ওয়েব ডিজাইন · বিভাগহহীন

HTMl, CSS স্টাইল লিখার কিছু স্টান্ডার্ড নিয়ম

ওয়েব ডিজাইনার যারা তারা ভালো করেই বুঝে CSS কি। কিন্তু অনেকেই বিশেষ করে যারা নতুন তারা লিখেই যায় কিন্তু সেইটাকে আরো ভালোভাবে এবং সঠিকভাবে উপস্থাপন করার বিষয়টা জানা থাকেনা কিংবা করেনা। সেরকম কিছু নিয়া লিখার চেষ্টা, যতটুকু জানি আর কি…
.
০১) লিখার শুরুতে ওই স্টাইল শীট কি কি উপাদানের স্টাইল আছে তার একটা সুচিপত্র রাখতে হবে। নাম আর লাইন নং হলে ভালো।

যেমন :
name — line no
—-
Features section — 10
About ————- 15

০২) CSS এর ক্লাস এবং আইডি এর নামকরণ টা Html এই হয়। সেক্ষেত্রে চেষ্টা রাখতে হবে যাতে ক্লাস বা আইডি এর নামের মাঝে স্পেস না থাকে আর নামকরণ এ (_) underscore ব্যবহার না করাই ভালো। সেক্ষেত্রে হাইফেন ব্যবহার করা যেতে পারে।

ভুল পদ্ধতি :
feature_content, feature content

সঠিক পদ্ধতি :
feature-content, featureContent,feature–content

০৩) Html এর প্রতিটা সেকশন এবং ডিভ অনুযায়ী কমেন্টিং করা জরুরী।
এতে যে কেউ বুঝতে পারে কোথায় কোন লাইনের কাজ হচ্ছে আর যেকোন ডেভেলপারের তাতে কাজ করতে সুবিধা হয়।

যেমন : <!– section slider start –>
<!– section slider end –>

.
০৪) CSS এও এরকম কমেন্টিং রাখা উচিত।
/*=======================
Section contact
=============================*/
.
০৫) কোড অবশ্যই ক্লিন রাখা চাই। তাতে হঠাত করে নিজের করা কোড দেখে ভয় পাওয়ার সম্ভবনা কম।
.
০৬) ক্লাস, আইডি নামকরণে ওই সেকশন বুঝে করতে হবে।
যেমন : feature-icon, এখানে শুধু আইকন দিলে বুঝতে সমস্যা হতে পারে যে এটা কোথায় ছিল।
কমন স্টাইল হলে সমস্যা নাই কিন্তু আলাদা আলাদা স্টাইল হলে এরকম মিলিয়ে নামকরণ করা উচিত।
.
সাধারণত কোন সন্তান জন্মের সময় যেমন বাবা মায়ের নামে নামকরণ করে অনেকটা সেরকম।
.
০৭) আইডি ও ক্লাস সেইম নেম হতে পারে কিন্তু সেইম আইডি না দেয়াই ভালো।
দেয়া যাবে আপনি যদি দেন , তবে আইডি ইউনিক হয় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে | আর প্রথম দিকে এরকম দিলে স্টাইলে ম্যাচ করাতে গিয়ে সমস্যায় পড়তে হয় | যারা এটা ভালো জানে তারা এল বলতে পারে তবে আপাতত আইডি একই রকম না দিয়েই কাজ করি সেটাই ভালো |
.
০৮) ইমেজ গুলো আলাদা আলাদা ফোল্ডার করে রাখা ভালো। তাতে কাজ অনেকটাই পরিপাটি হয়।

ঘর যদি গোছানো না হয় পরে নিজেরি মাথা ব্যাথা করে।
কোডিং এও সেইম পরে নিজেই ভাববেন আমি কি করেছি!!
.
০৯) অবশ্যই হাই কোয়ালিটি ইমেজ ব্যবহার করার চেষ্টা করবেন। তার জন্য অসংখ্য সাইট আছে যারা ফ্রি ভালো কোয়ালিটি ইমেজ প্রোভাইড করে এবং তা কমার্শিয়ালি ব্যবহার করা যাবে। জাস্ট গোগুল ইট…
.
১০) বারবার ক্লাস কল করে অযথা কোড বেশি না লিখাই ভালো। এর মানে হল, আপনি একই ক্লাস একই ক্যাটাগরি তে দিয়ে যদি সেইম আউটপুট পেতে পারেন তবে আরেকটা ক্লাস নেয়ার দরকার কি!!
.
যেমন : about-box, ক্লাসের সব সেইম স্টাইল হবে যদি তাদের মধ্যে কারোটায় আরেকটু পার্থক্য করতে চান তবে ওইটার সাথে আরেকটা ক্লাস নিতে পারেন তাতে করে সবগুলোর জন্য আলাদা আলাদা ক্লাস লাগেনা।
.
মেইনলি কমন কাজ করেন আর প্রয়োজনে আলাদা কাউকে ডাকেন।
.
আর কাজের ব্রান্ডিং করুন,ভুল ধরলেই শিখবেন, শিখার বেলায় লজ্জা, দ্বিধা এগুলোকে দূরে রাখা চাই…
.
#আর অবশ্যই আজকের করা কাজ যদি আপনার কয়েকদিন পর ভালো না লাগে, জেনে রাখুন আপ্নার কাজের উন্নতিই হচ্ছে।।। 😀
.
আমিও শিখছি, ভুল হলে জানিয়ে দিবেন। যা মাথায় আসে তাই লিখে দেই…
ধন্যবাদ…
Happy coding..

মন্তব্য

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s